Ph7cms dating site

Alongside with free hosting your free website built on WIX will have second level domain, limited to 500MB storage space and to 1G bandwidth, built-in Google Analytics, quality support and Wix brand ads on all pages of your website.Here is a great Wix video tutorial that will make your work on creating a website on Wix much easier: Website Builder is an easy free website builder and a smart option for both established businesses and start-ups to build mobile-friendly websites.It is an all-in-one package for beginners who want to build interactive websites and establish a strong web presence. Here you don’t have to deal with complex coding and don’t need any special software skills.The point and click interface is very user-friendly.All you have to do is choose a suitable template, customise it and then publish it online with just a click.Users can even edit the website and publish the updates live once the website is launched.Wix is one of the best free web builders and perhaps the most popular.WIX specializes on search engine friendly HTML5 websites.

We’ve not just gathered a list o 15 best free website builders but also tested them and found out what are advantages of each one.

If you’re reading this you’re looking for the best free website builder at the moment.

The bad news is there are many free website builders software and it’s easy to get confused which one to choose.

Over 10,000 template combinations, analytics tools, social media integration features, and one-click launch process further contribute to the platform’s credibility.

The starter plan is free while all the other packages offer free ad credits, hosting and domain services.

Search for ph7cms dating site:

ph7cms dating site-85

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

One thought on “ph7cms dating site”

  1. আমি এই অশ্লীল আচরণ বেশ কয়েক বছর ধরেই সহ্য করে আসছি। কিন্তু গত সপ্তাহে আমার এক বন্ধুর বিয়েতে সবকিছু কেমন যেন নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেল।আমার এক বাল্যবন্ধু কেন যে বছরের এই অসময়ে বিয়ে করতে বসলো আমি জানিনা। সারাদিন শুধু বৃষ্টি আর বৃষ্টি। বৃষ্টি দেখে দেখে সব অতিথিদেরই মুখ গোমড়া হয়ে গিয়েছে। প্রথমে ঠিক করা হয় খোলা আকাশের নিচে বিয়ে হবে। কিন্তু বৃষ্টি না থামায় সাময়িক ভাবে কোনো রকমে একটা শামিয়ানা খাটানো হয়। শামিয়ানার তলায় আগুন জ্বালিয়ে বর-কনের বিয়ে দেওয়া হবে। বিয়ে সম্পন্ন হতেই শামিয়ানা ফাঁকা করে পুরো জনসভা বিয়েবাড়ির ভিতর ঢুকে যায়। বিয়ে সম্পন্ন হতেই মাকে নিয়ে আমার সমস্যা শুরু হয়ে গেল। আমার মা মদ্যপান করতে পছন্দ করে। আসলে শুধু এই কথা বললে খুব কম বলা হয়। মদ প্রত্যাখ্যান করা ওর সাধ্যের বাইরে। সন্ধ্যা থেকে মদের বন্যা বয়ে গেল আর সেই সুযোগ নিয়ে আমার মা নয়টার মধ্যে আধ বোতল মদ খেয়ে ফেললো। পূর্ব অভিজ্ঞতা থেকে আমি ভালো করেই জানতাম এই অবস্থায় ওকে রুখতে যাওয়া কত বড় বোকামি। মেজাজে থাকলে কোনো বাধাই ওর বিরুদ্ধে যথেষ্ট নয়। উল্টে বেশি বাধা দিতে গেলে মেজাজ হারিয়ে ও বিপজ্জনক কিছু ঘটিয়ে ফেলতে পারে।সারা সন্ধ্যা ধরে আমি যে কতবার আমার মাকে ভিড়ের মধ্যে হারিয়ে ফেললাম আর কতবার যে ওকে পরপুরুষের বাহুতে খুঁজে পেলাম তার কোনো হিসাব নেই। বিয়েবাড়িতে গান বাজছে আর সেই গানের তালে আমার মা নিত্যনতুন সঙ্গীর সাথে মদ খেতে খেতে কোমর দোলাচ্ছে। বিশেষ করে যখন লারেলাপ্পা ছেড়ে ডিজে ঢিমে তালের গান বাজাতে শুরু করলো তখন ওকে ওর সঙ্গীর সাথে খুব ঘনিষ্ঠ ভাবে নাচতে দেখা গেল। অতি বিরক্তির সাথে দেখতে হলো আমার মা এক দীর্ঘদেহী সুপুরুষ যুবককের বুকে মুখ রেখে তাকে এক হাতে জাপটে ধরে নাচছে, ওর অন্য হাতে মদের গেলাস।এই চটি কাহিনী আপনি বাংলা চটি সাইট ডট কম এ পড়ছেন । অন্যদিকে যুবকটিকে দেখে মনে হলো এমন একটি সুন্দরী মহিলার সাথে সর্বসমক্ষে আদিখ্যেতা করতে পেরে ভয়ঙ্কর উত্তেজিত। তার এই উত্তেজনা ঢাকার কোনো প্রচেষ্টা সে করছে না। তার দুটি হাত বিনা বাধায় আমার মায়ের খোলা পিঠে ঘুরে বেড়াচ্ছে। (আমার মা একটা পিঠ-খোলা পাতলা আঁটসাঁট জামা পরেছিল।) ঘুরতে ঘুরতে হাতদুটো পিঠ থেকে নেমে কোমর ছাড়িয়ে আমার মায়ের বিশাল নিতম্বে এসে থামলো। সঙ্গে সঙ্গে যুবকটি মনের সুখে দুহাত দিয়ে গায়ের জোরে আমার মায়ের পশ্চাৎ টিপতে আরম্ভ করে দিলো।কিছু একটা বলা দরকার, নয়তো বাড়াবাড়ি হয়ে যেতে কতক্ষণ। কিন্তু যতবারই আমি ওদের দিকে যাবার চেষ্টা করলাম ততবারই আমার কোনো না কোনো বন্ধু গল্প করার জন্য আমার রাস্তা আটকে দাঁড়ালো। একসময় খানিকটা বাধ্য হয়েই স্থির করলাম মাকে উপেক্ষা করবো। কিছুক্ষণ বাদেই হয়ত গানের তাল বদলে যাবে আর তখন ওদের ছাড়াছাড়ি হয়ে যাবে।আমি আমার বিদ্যালয়ের পুরনো বন্ধুদের নিয়ে একটা দল বানিয়ে আড্ডা দিতে লাগলাম। অল্পক্ষণের মধ্যে আমাদের আড্ডা বেশ জমে উঠলো। কিন্তু আড্ডা দিতে দিতে আমার চোখ বারবার আমার মায়ের দিকে চলে গেল। অবশেষে ডিজে মন্থর গান ছেড়ে আবার দ্রুত গানে ফিরলো। আমার মাও তার নাচের সঙ্গী বদলালো। কিন্তু নাচের ভঙ্গি বদলালো না। সুপুরুষ যুবকটি খুব অনিচ্ছুক ভাবে আমার মাকে বিদায় জানালো। আমার মা অল্প অল্প টাল খাচ্ছে। নেশায় ওর শরীরটা সামনে-পিছনে দুলছে। আমি ভাবলাম যুবকটি এটা খুব অবিবেচকের মত কাজ করলো। কিন্তু পরক্ষণেই আমার ভুল ভেঙে গেল। অবিলম্বে যুবকটির এক বন্ধু এসে আমার মাকে জড়িয়ে ধরলো।প্রথম যুবকটি সোজা বারে চলে গেল। বারে গিয়ে আরেকটি বন্ধুর সাথে রসিকতা করতে লাগলো আর খিক খিক করে হাসতে লাগলো। রসিকতার বিষয়বস্তু বুঝতে আমার এতটুকু অসুবিধা হলো না। দুজনের নজরই তাদের বন্ধুর দিকে। আমার মায়ের সঙ্গে যে নাচছিল আর ওর দেহ নিয়ে খেলা করছিল সে তার বন্ধুদের দিকে তাকিয়ে চোখ টিপলো। সেই দেখে দুই বন্ধু দাঁত বের করে হাসতে লাগলো।অকস্মাৎ কেউ আমার মাথায় একটা চাঁটি মারলো। আমার এক বন্ধুর কীর্তি। তার মুখ দেখে বুঝলাম সে একটু অসন্তুষ্ট হয়েছে। মাকে মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলে দিলাম। আমারও তো সন্ধ্যাটা উপভোগ করার অধিকার আছে। শত হোক আমার বাল্যবন্ধুর বিয়ে। মায়ের উপর নজর রাখতে গিয়ে না গোটা সন্ধ্যাই মাটি হয়ে যায়। এই চটি কাহিনী আপনি বাংলা চটি সাইট ডট কম এ পড়ছেন । আমি ঠিকমত আলোচনায় অংশগ্রহণ করছি না বলে অনেকেই দেখলাম অল্পবিস্তর রূষ্ট। স্থির করলাম মাকে ছেড়ে আড্ডায় মন দেবো। পরের আধঘন্টা বন্ধুদের সাথে বেশ ভালোই আড্ডা দিলাম। কিন্তু তার পরেই ভিড়ের দিকে চোখ গেল। আমার মাকে দেখতে পেলাম না। আমার মনে উদ্বেগের সঞ্চার হলো। আমার মা কোথায় কার সাথে রয়েছে আমার জানা দরকার। আমি বন্ধুদের কাছ থেকে ক্ষমা চেয়ে নিয়ে মাকে খুঁজতে শুরু করলাম।প্রথমেই আমার চোখ বারের দিকে গেল। কিন্তু সেই লম্বা চওড়া সুপুরুষ যুবকটি তার দুই বন্ধু সমেত উধাও হয়েছে। আমি অন্যদিকে খুঁজতে লাগলাম। কিন্তু যথাসাধ্য চেষ্টা করেও কোথাও আমার মাকে খুঁজে পেলাম না। আমার মাথায় নানান উল্টোপাল্টা চিন্তা ঘুরপাক খেতে লাগলো। এমন প্রথমবার নয় যে আমার মা আমার সাথে প্রতারণা করলো, কিন্তু তিন তিনজনের সাথে তাও একটা বিয়েবাড়িতে। আমার মায়ের স্পর্ধা দেখলে আঁতকে উঠতে হয়। এতটা দুঃসাহসিক কিছু যে ও করতে পারে এমন কল্পনা আমি কখনো করিনি। আমার মাথা ভন ভন করে ঘুরে গেল।সন্দেহ আর আশংকা আমাকে গ্রাস করলো। নিচের বিশাল হলঘর তন্ন তন্ন করে খোঁজবার পর আমি সিঁড়ি ভেঙে দোতলায় উঠলাম। দোতলায় উঠে নিশ্বাস চেপে শোনবার চেষ্টা করলাম। কিন্তু কোথাও সন্দেহজনক কোনো শব্দ শুনতে পেলাম না। অধিকাংশ দরজাই হাট করে খোলা। আমি প্রত্যেক ঘরে উঁকি মেরে দেখলাম। কোথাও কিছু নেই। আমার মনে ধীরে ধীরে স্বস্তি ফিরে এলো। হয়ত আমারই মনের ভুল, হয়ত আমার মা তাজা হাওয়া খেতে একটু বাইরে বেরিয়েছে। এমন ধারণা মনে আসতেই মনটা আবার অধীর হয়ে উঠলো। এক সেকেন্ডের মধ্যে সমস্ত ভয়-শংকা আবার ফিরে এসে মনে দানা বাঁধলো। আমি তো ফাঁকা শামিয়ানা পরীক্ষা করিনি।দৌড়ে নিচে নামলাম। তখনও বাইরে ঝমঝমিয়ে বৃষ্টি হচ্ছে। বাইরে বেরোতেই দুমিনিটের মধ্যে ভিজে কাক হয়ে গেলাম। শামিয়ানার বিশ হাত দূরে গিয়ে থামলাম। শামিয়ানার তলায় আমার মাতাল মা সম্পূর্ণ উলঙ্গ হয়ে একটি অতিকায় পুরুষাঙ্গ মুখে পুরে সাগ্রহে চুষছে আর এক হাত দিয়ে আরেকটি অনুরূপ বৃহৎ পুরুষাঙ্গ হস্তমৈথুন করে দিচ্ছে। ওই এক নিয়তিনির্দিষ্ট মুহুর্তে চোখের সামনে নিজের সমস্ত দুঃস্বপ্নকে বাস্তবে পরিবর্তিত হয়ে যেতে দেখলাম। ঘৃণায়-বিতৃষ্ণায় মনটা তেতো হয়ে গেল। কিন্তু এর সাথে আরো একটা অনুভূতি মনের মধ্যে কোত্থেকে জানি ঢুকে পড়লো - রোমাঞ্চ। এই চটি কাহিনী আপনি বাংলা চটি সাইট ডট কম এ পড়ছেন । নিজের মাকে তিনজন পরপুরুষের সাথে দেখে মনে মনে ভীষণ উত্তেজিত বোধ করলাম। উত্তেজনায় আমার পুরুষাঙ্গটি আস্তে আস্তে শক্ত হয়ে যাচ্ছে।বিশ হাত দূর থেকেও শামিয়ানার ছাদে পড়তে থাকা বৃষ্টির শব্দকে ছাপিয়ে আমার মায়ের লালসা মিশ্রিত চাপা দীর্ঘনিঃশ্বাস ঠিক শুনতে পেলাম। আমার মা বুকের উপর ভর দিয়ে হাঁটু গেড়ে নিতম্ব উঁচু করে উপুড় হয়ে বসেছে। যে যুবকের লিঙ্গ ও মনের সুখে চুষে চলেছে, তার কোলে ও মাথা রেখেছে। মায়ের পিছনে দলের তৃতীয় সদস্যকেও দেখতে পেলাম। সে আমার মায়ের গোপনাঙ্গে তার আঙ্গুল ঢুকিয়ে নাড়াচ্ছে।শীঘ্রই আমার মায়ের চাপা দীর্ঘশ্বাস অস্ফুট গোঙ্গানিতে পরিনত হলো। তৃতীয় বন্ধু আরো জোরে জোরে আঙ্গুল নাড়াতে লাগলো। মনে হলো সে যোনির আরো গভীরে আঙ্গুল ঢুকিয়ে দিলো। যুবকটি যত গভীরে ঢোকাতে লাগলো তত আমার মা ওর পা দুটো ফাঁক করতে লাগলো। অনিবার্য মুহুর্তটি যত বেশি কাছে আসতে লাগলো তত বেশি আমার মায়ের নিতম্ব কাঁপতে লাগলো।অল্প কিছুক্ষণের মধ্যেই আমার মা সারা শরীর কাঁপিয়ে রস ছেড়ে দিলো। যে যুবকের লিঙ্গ আমার মা এতক্ষণ চুষছিল সে ওর মাথাটা শক্ত করে চেপে ধরে ওর মুখটা আরো বেশি করে নামিয়ে দিলো। সঙ্গে সঙ্গে তার বৃহৎ ফুলে ফেঁপে ওঠা পুরুষাঙ্গটি পুরো আমার মায়ের মুখের ভিতর ঢুকে গেল। আমি আগে কখনো আমার মাকে গলার গভীরে লিঙ্গ নিতে দেখিনি। কিন্তু নিজের চোখের সামনে জলজ্যান্ত প্রমানকে তো আর অস্বীকার করা যায় না। অনৈচ্ছিক ভাবে আমার মায়ের নগ্ন পা দুটিতে খিঁচুনি লেগে গেল, পা দুটোকে একদম কুঁকড়ে নিলো। যদি আমার মা তার স্বরযন্ত্রকে ব্যবহার করার সুযোগ পেত তাহলে আমি নিশ্চিত উচ্ছ্বাসে ও তারস্বরে চিত্কার করতো।যে যুবক আমার মাকে আঙ্গুলিচালন করে দিচ্ছিলো সে আচমকা চেঁচিয়ে উঠলো। "আয় খানকি মাগী আয়! " স্পষ্ট হয়ে গেল রস ছাড়ার পরেও আমার মাকে কোনো বিশ্রামের ছাড় দেওয়া হবে না। দ্রুত আমার মাকে চিৎ করে শুইয়ে দেওয়া হলো। আমার মা আবার ওর মুখের সামনে ধরা দুটো রাক্ষুসে পুরুষাঙ্গ পাল্টাপাল্টি করে চুষতে লাগলো আর হস্তমৈথুন করে দিতে লাগলো। তৃতীয় যুবকটি তখন উঠে এসে এক জোরাল ধাক্কায় তার দানবিক পুরুষাঙ্গ পুরোটা মায়ের যোনির গর্তে ঢুকিয়ে দিলো। আমার মায়ের চাপা কাকুতি ছেলেগুলোর অট্টহাসির তলায় চাপা পড়ে গেল। যে আমার মায়ের মুখে লিঙ্গ ঢুকিয়েছে সে ইতিমধ্যে উগ্র হয়ে উঠে আমার মায়ের মুখের ভিতর জোরে জোরে ঠেলা মারতে শুরু করে দিলো। তার দেখাদেখি আমার মায়ের যোনিতে ঢুকে থাকা ছেলেটি হিংস্র ভাবে গুঁতিয়ে গুঁতিয়ে আমার মায়ের সাথে যৌনসঙ্গম করতে লাগলো।সঙ্গম করতে করতে ছেলেটি আমার মাকে অভিশাপ দিতে লাগলো।এই চটি কাহিনী আপনি বাংলা চটি সাইট ডট কম এ পড়ছেন । "শালী দুশ্চরিত্রা কুত্তি, গুদটা চুদিয়ে চুদিয়ে তো একদম খাল বানিয়ে ফেলেছিস! " সেই দেখে দ্বিতীয় বন্ধু বুদ্ধিমানের মত তার ভয়ঙ্কর অস্ত্রটি ওর মুখে পুরে ওকে চুপ করিয়ে দিলো।প্রথম বন্ধুই বা চুপচাপ তামাশা দেখবে কেন?

  2. Acts of domestic violence may be either overt (e.g. However, there are many reasons a victim might stay put; reasons that are rooted in strong emotional and psychological ties that are not easily broken.